তাজা খবর:

বনানীর একটি বাসা থেকে শিল্পপতি দম্পতির লাশ উদ্ধার                    তারেকের স্ত্রী জোবাইদা বরখাস্ত                    ডিএমপি কমিশনারকে হাইকোর্টে তলব                    গুম-খুন ও মামলায় আন্দোলন থেকে দূরে রাখা যাবে না: বিএনপি                    আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি হচ্ছে                    সংসদে বিরোধীদলীয় নেতার দাবি নিয়ে হাস্যরস                    দুর্যোগময় পরিস্থিতিতেও সরকার উদাসীন: খালেদা                    আ. লীগ যা পায় তাই চেটে খায় : তরিকুল                    রাজশাহীতে এরশাদের উপস্থিতিতে জাপার সম্মেলন পণ্ড                    জবিতে প্রতি আসনে লড়বে ৮২ শিক্ষার্থী                    
  • মঙ্গলবার, ০২ সেপ্টেম্বর ২০১৪, ১৭ ভাদ্র ১৪২১
Breaking News রাজধানীর বনানীর ডিওএইচএস এর একটি বাসা থেকে শিল্পপতি দম্পতির লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ                    

মুশফিকদের বিপক্ষে শক্ত জবাব সেন্ট কিটস ও নেভিসের

মুশফিকদের বিপক্ষে শক্ত জবাব সেন্ট কিটস ও নেভিসের

ভালোই জমে উঠেছে বাংলাদেশ-সেন্ট কিটস ও নেভিস এর মধ্যকার তিন দিনের প্রস্তুতি ম্যাচ।

ভালবাসা একতরফা কিনা পরখ করে নিন

ভালবাসা একতরফা কিনা পরখ করে নিন

কথায় আছে, যত ঝগড়া ততই ভালবাসা। এটা ঠিক, যে কোনো সম্পকের্র মধ্যে টুকটাক

শেষ হচ্ছে এমএসএন ম্যাসেঞ্জারের যুগ

শেষ হচ্ছে এমএসএন ম্যাসেঞ্জারের যুগ

১৯৯৯ সালে যাত্রা শুরু করা এমএসএন ম্যাসেঞ্জার সেবা একসময় খুব জনপ্রিয়তা পেয়েছিল। তবে

শত হলিউডি অভিনেত্রীর নগ্ন ছবি ফাঁস

শত হলিউডি অভিনেত্রীর নগ্ন ছবি ফাঁস

সাম্প্রতিক কালের মধ্যে হলিউডের সবচেয়ে বড় ফাঁসের ঘটনা ঘটল। একসঙ্গে ১০০ জন হাইপ্রোফাইল

গরু মোটাতাজাকরণে ব্যস্ত নন্দিগ্রামের খামারিরা

এফএনএস (ম,রফিক,বগুড়া ):

01 Sep 2014   10:16:16 PM   Monday BdST
A- A A+ Print this E-mail this

আসন্ন কোরবানি ঈদের বাজার ধরতে বগুড়া জেলার বিভিন্ন উপজেলায় কয়েক শত গরু খামারী গরু মোটাতাজাকরণ প্রকল্পে অর্থ বিনিয়োগ করেছেন । পর পর কয়েক বার গরু ব্যবসায় তাদের লোকশান পুশিয়ে নিতে এবার বেশ জোরে সোরে তাদের গরু গুলিকে মোটা তাজা করনের কাজে নিজেদের ব্যাস্ত রেখেছেন ।

অন্যদিকে পূর্ব বগুড়ার অধিকাংশ উপজেলায় ভয়াবহ বন্যা কবলিত হবার পরে অন্তত ৩টি উপজেলার কয়েক শত গরু খামাড়ী এবং সাধারন মানুষ নিজের জানমাল রক্ষায় প্রতিনিয়ত লড়াই করে বেচে আছেন। বিশেষ করে কোরবানীর পশুর এলাকাহিসাবে প্রধান কয়েকটি উপজেলা পূর্ব বগুড়ার সোনাতলা ,সারিয়াকান্দি ধুনট সহ গাবতলী এলাকা বন্য্য কবলিত হওয়ায় এসব এলাকার ব্যবসায়ীরা শুধু হতাশাই দেখছেন ।

অন্যদিকে কোরবানীর বাজার ধোরতে এবার নন্দীগ্রাম উপজেলার প্রায় অর্ধশত ক্ষুদ্র খামারি দিনরাত ব্যাস্ত থাকছেন । পর পর তিন বছর লোকসান দিয়ে এবার ভালো দাম পাওয়ার আশা করছেন তারা। রাজনৈতিক অস্থিরতা না থাকার কারণে এ বছর গরুতে লাভ হবে এমনটি আশা করছেন গরু খামারিরা।

পৌর শহরের ঢাকইর গ্রামের ক্ষুদ্র খামারি ফারুক হোসেন বলেন, তাদের গ্রামে ৪০টি পরিবার ব্যক্তিগত উদ্যোগে দেশী জাতের গরু পালন করছে। তিনি নিজেও পালন করছেন ২/৩টি গরু। একই গ্রামের আব্দুল বাকী সবচেয়ে বড় গরু মোটাতাজাকরণ খামার গড়ে তুলেছেন।

উপজেলার সিংজানী গ্রামের আব্দুল আলীম জানান, গরু পালন তার নেশা। গত বছর রাজনৈতিক অস্থিরতা ও চোরাই পথে ভারত থেকে গরু আসায় ভাল দামে গরু বিক্রি হয়নি। লোকসানের পরও এ বছর তিনি ৫টি গরু মোটাতাজা করেছেন। তাদের খামারে হরিয়ানা ও ক্রসবিড জাতের গরু রয়েছে।

হাটুয়া গ্রামের সানা চন্দ্র বলেন, ভুষি, চিটেগুড়, খুদকুড়া ও খৈলের দাম বৃদ্ধির পরও তাদের পরিবার পনের বছর ধরে গরু মোটাতাজাকরণ করছেন। পরিবারে তার মা, ভাই ও স্ত্রী গরু পালনে সহায়তা করেন। তবে গরু মোটাতাজায় তারা কোনো ইনজেকশন ব্যবহার করেন না বলে দাবি করেন। তাদের ভাষ্য, কৃষিকাজে তারা যে গম, খৈল ও ভুষি পান তা থেকেই গরুর খাবার যোগান দেন। তাছাড়া যারা ঈদের ১/২ মাস আগে গরু কিনে পালন করেন তারাই ইনজেকশনে গরু মোটাতাজা করেন। এই উপজেলায় সরকারিভাবে বড় ধরনের কোনো খামার বা গরু মোটাতাজাকরণ প্রকল্প না থাকলেও গ্রামের স্বল্প আয়ের মানুষগুলো বাড়তি লাভের আশায় কোরবানি ঈদের ৬মাস আগ থেকেই গরু মোটাতাজায় লগ্নি করেন। আর এভাবেই উপজেলায় ২০০টি ছোটবড় খামার গড়ে উঠেছে।


উপজেলার আলাইপুর, হাটুয়া, ইউসুবপুর, কৈডালা, হাটলাল, মুথরাপুর, সিংজানী, ডেরাহার, কদমা, কাথম, ঢাকইর, বৈলগ্রাম, বাদলাশন, বিজরুল, আমড়াগোহাইল, হাটধুমা গ্রাম পরিদর্শনে বেশকিছু মাঝারি খামার চোখে পড়ে।
খামারীরা জানান, উপজেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তরের নির্দেশনা অনুযায়ী তারা গরুর পরিচর্যা করেন। সম্পূর্ণ দেশি খাবার দিয়ে তাদের খামারের গরু মোটাতাজা করা হয়। ৬মাস আগে খামারের প্রতিটি গরু ২৮থেকে ৩৫হাজার টাকায় কেনা হয়। ঈদ মৌসুমে প্রতিটি গরু ৬৫হাজার টাকার উপরে বিক্রি হবে বলে তারা আশা করেন।


উপজেলার ইউসুবপুর গ্রামের মিলন হোসেন দুগ্ধ খামারের পাশাপাশি ২৫টি গরু নিয়ে মাঝারি ধরনের খামার গড়ে তুলেছেন। এবছর প্রতিটি গরু ৫৫ হাজার টাকা করে বিক্রি করা যাবে বলে তিনি জানান।
পল্লী চিকিৎসক আকতার হোসেন জানান, এক সময় ডেকসামেথাসন বা এসটেরয়েড জাতীয় হরমোন বৃদ্ধির ওষুধ খাওয়ানোর প্রচলন ছিল। এই ওষুধ সেবনের ফলে গরুর মাংস দ্রুত বৃদ্ধি হলেও গরুর জীবন বিপন্ন হতো। এখন তো খামারিরা ৬/৭ মাস আগেই গরু কিনে পালন করেন। তাই তারা গরু মোটাতাজাকরণে বেশ সময় পাচ্ছেন।
তিনি আরো জানান, প্রাণিসম্পদ বিভাগ থেকে প্রশিক্ষণ দেওয়ার সময় খামারিদের বিপজ্জনক পথ থেকে সরে আসার পথ বাতলে দিয়েছেন।


উপজেলা প্রাণিসম্পদ অফিসার ডা: উত্তম কুমার দাশ বলেন, এই উপজেলায়  ভাল ঘাস হয়। তাই গরুর খামার করার এখানে যথেষ্ট সম্ভাবনা গড়ে উঠেছে। সবচে বড় কথা যারাই খামার করছেন, তারা কৃষিকাজের সঙ্গে যুক্ত।
তিনি আরো বলেন, এফএমভি ভ্যাকসিনের অভাবে আমরা খামারিদের স্বল্পমূল্যে তা সরবরাহ করতে পারছি না। বাইরে থেকে এফএমভি ভ্যাকসিন দুইশ টাকা করে খামারিদের কিনতে হচ্ছে। অথচ সরকারিভাবে এই ভ্যাকসিনের দাম মাত্র ১০টাকা। আগে গরু মোটাতাজাকরণে ক্ষতিকর ইনজকশন ব্যবহার হতো। প্রাণিসম্পদ দপ্তরের নজরদারি ও খামারিরা সচেতন হওয়ায় এখন কেউ আর ইনজেকশন দেয় না। এখন খামারিরা কৃমিনাশক বড়ি ও ক্ষুধাবৃদ্ধির জন্য মিনারেল ট্যাবলেট খাওয়ান। তবে গত বছরের চেয়ে এবার দাম ভাল থাকায় ক্ষুদ্র খামারিরা বেশ উজ্জীবিত।



সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
আপনার পছন্দের এলাকার সংবাদ
পড়তে চাই:
comments powered by Disqus

জেলার খবর-এর সর্বশেষ

৪৮/১, উত্তর কমলাপুর, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০
ফোন : +৮৮ ০২ ৯৩৩৫৭৬৪
E-mail: info@fairnews24.com
fnsbangla@gmail.com
Development by : eMythMakers.com